ইউনিয়ন পরিষদ উপনির্বাচন- লালমনিরহাটে দুটিতে আ.লীগ, একটিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী জয়ী

লালমনিরহাটে তিনটি ইউনিয়ন পরিষদের উপনির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে দুটিতে আওয়ামী লীগ ও একটিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী জয়ী হয়েছেন। এরমধ্যে হাতীবান্ধা উপজেলার গড্ডিমারী ইউনিয়ন পরিষদ ও একই উপজেলার পাটিকাপাড়া ইউনিয়ন পরিষদে আওয়ামী লীগের দুই প্রার্থী এবং কালীগঞ্জ উপজেলার দলগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের উপনির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী জয়ী হয়েছেন।

মঙ্গলবার (২০ অক্টোবর) এই তিন উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে উপনির্বাচনের ভোট অনুষ্ঠিত হয়।

লালমনিরহাট জেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, হাতীবান্ধা উপজেলার গড্ডিমারী ইউনিয়ন পরিষদের উপনির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের আবু বক্কর সিদ্দিক শ্যামল নৌকা প্রতীকে ৯ হাজার৬৬৮ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী আক্তার হোসেন খন্দকার মোটরসাইকেল প্রতীকে ৭৯৭ ভোট, বিএনপির আবু তাহের মো. শফিকুল ইসলাম ধানের শীষ প্রতীকে ৩৯২ ভোট ও জাতীয় পার্টির প্রার্থী আনোয়ার হোসেন লাঙ্গল প্রতীকে ১৪৩ ভোট পেয়ে জামানত হারিয়েছেন।

একই উপজেলার পাটিকাপাড়া ইউনিয়নের উপনির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মুজিবুল আলম নৌকা প্রতীকে ৪ হাজার ৪৯৫ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। নিকটতম প্রার্থী বিএনপির ধানের শীষ প্রতীকে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান সফিয়ার রহমান ১ হাজার ৯৮২ ভোট ও স্বতন্ত্র প্রার্থী শরিফুল ইসলাম আনারস প্রতীকে ২২৬ ভোট পেয়েছেন।

এদিকে কালীগঞ্জ উপজেলার দলগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের উপনির্বাচনে জয়ী হয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী রবীন্দ্র নাথ বর্মণ। তিনি মোটরসাইকেল প্রতীকে পেয়েছেন ৪ হাজার ৮১ ভোট। উপনির্বাচনে বিএনপির ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী ইকবাল আযম পেয়েছেন ৩ হাজার ৫৬৬ ভোট। এ উপনির্বাচনে তৃতীয় হন আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আব্দুল গফুর। তিনি পেয়েছেন ২ হাজার ৬৪৭ ভোট। অপর স্বতন্ত্র প্রার্থী আলী মর্তুজা আনারস প্রতীকে ১ হাজার ৩৭৭ ভোট পেয়েছেন।

হাতীবান্ধা উপজেলা নির্বাহী অফিসার সামিউল আমিন নির্বাচন শান্তিপূর্ণ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হয়েছে দাবি করে বলেন, জনগণের রায় সবাইকে মেনে নিতে হবে। এটিই গণতন্ত্রের সৌন্দর্য। আমরা আশা করি সবাই নির্বাচন পরবর্তী শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখবে।

লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক আবু জাফর বলেন, নির্বাচন শান্তিপূর্ণ পরিবেশে উৎসব মুখরভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে। কোথাও কোনও অপ্রীতিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়নি।