ব্যালট পেপারে সিল মেরে লালমনিরহাটে ওয়ার্ড বিএনপির নেতা নির্বাচন

মেহেদী হাসান জুয়েল||  রীতিমতো পোস্টার ছাপিয়ে, পুরোপুরি নির্বাচনী আমেজে ব্যালট পেপারে সিল মেরে নেতা নির্বাচন করলো লালমনিরহাট বিএনপির তৃণমূল নেতা কর্মীরা।

শুক্রবার বিকাল তিনটা থেকে ছয়টা পর্যন্ত গনতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় এ কার্যক্রম শুরু করেছে লালমনিরহাট জেলা বিএনপি। এদিন সদর উপজেলার মহেন্দ্রনগর ইউনিয়নের ছয়টি ওয়ার্ডে মূল দল বিএনপির ওয়ার্ড কমিটির ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। বাকি তিনটি ওয়ার্ডে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ায় সেখানে ভোটের প্রয়োজন পরেনি বলে জানিয়েছেন সদর উপজেলা বিএনপির আহবায়ক একেএম মমিনুল হক।
তিনি আরও বলেন, এ প্রক্রিয়ায় কমিটি হলে যোগ্য ও ত্যাগীরাই নেতৃত্বে আসবেন এবং এর ফলে সাংগঠনিক কর্মকান্ডেও গতি আসবে।

বিএনপি চেয়ারপারসন স্বাক্ষরিত সদস্য ফরম

রাজনৈতিক দলের এ ধরনের গনতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় ভোট গ্রহণের খবর পেয়ে বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার কর্মীরা ১ নং ওয়ার্ডের হাড়িভাংগা এবং কাশীপুর ভোট কেন্দ্র পরিদর্শনে গিয়ে রীতিমতো এলাহী কারবার দেখতে পান। প্রার্থীদের প্রতীক সম্বলিত নির্বাচনী পোস্টারে ছেঁয়ে গেছে পুরো কেন্দ্র। নারী ও পুরুষ ভোটাররা আলাদাভাবে লাইনে দাঁড়িয়ে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করছেন। বুথের ভেতরে গেলে দেখা যায় পোলিং অফিসারের দ্বায়িত্বে থাকা নেতারা ভোটারদের পরিচিতি কার্ড নিয়ে তাদের হাতে থাকা ভোটার লিষ্টে মিলিয়ে ব্যালট পেপার সরবরাহ করছেন। যেখানে প্রার্থীদের ভিন্ন ভিন্ন প্রতীক রয়েছে। ভোটাররা ব্যালট পেপার নিয়ে গোপন কক্ষে সিল মেরে স্বচ্ছ ব্যালট বাক্সে ফেলছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ও লালমনিরহাট জেলা বিএনপির সভাপতি অধ্যক্ষ আসাদুল হাবিব দুলু বলেন, তৃণমূল থেকে ভোটের মাধ্যমে নেতা নির্বাচিত করার পরিকল্পনা করা হয়েছে।

সে অনুযায়ী ওয়ার্ড, ইউনিয়ন, থানা, উপজেলা, পৌর, জেলায় সরাসরি ভোটের মাধ্যমে নির্বাচিত কমিটি হবে। অঙ্গসংগঠনগুলোতেও এ প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। ভোটের মাধ্যমে সব স্তরে যোগ্য ও ত্যাগীদের নেতৃত্বে আনা হবে।

তিনি আরও বলেন, গণতান্ত্রিক উপায়ে ভোটের মাধ্যমে দলের সর্বস্তরে পুনর্গঠন হবে, এটাই আমরা প্রত্যাশা করি। এতে যোগ্য ও ত্যাগীরা জায়গা পাবে এবং দলে গতি আসবে।

নারী ভোটারদের লাইনে দাঁড়িয়ে ভোট দিতে দেখা যায়