২০২২ সালের জুনের মধ্যে খুলবে পদ্মা সেতু

পদ্মা সেতুতে বসেছে শেষ স্প্যান। আজ বৃহস্পতিবার পদ্মা সেতুতে ৪১তম স্প্যান বসার পর দৃশ্যমান হয়েছে পুরো সেতু। আর এ সেতু ২০২২ সালের জুন মাসের মধ্যে যানবাহন চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া সম্ভব হবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম। আজ বৃহস্পতিবার রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে অর্থ বিভাগ আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

আজ বৃহস্পতিবার ১২টার দিকে সেতুর মাওয়া প্রান্তের ১২ ও ১৩ নম্বর খুঁটির ওপর বসে ৪১ তম স্প্যান। তার আধা ঘণ্টা পর মন্ত্রিপরিষদ সচিব এমন আশাবাদ ব্যক্ত করেন। পদ্মা সেতুর শেষ স্প্যান বসার কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘এখন পূর্ণাঙ্গ পদ্মাসেতু দৃশ্যমান হয়েছে। ধারণা করছি, ২০২২ সালের জুনের মধ্যে আমরা পদ্মা সেতু খুলে দিতে পারবো।’

মন্ত্রিপরিষদ সচিব এ সময় নিজের মোবাইল ফোনে থাকা পদ্মা সেতুর কাঠামোর ছবি প্রজেক্টরে দেখিয়ে বলেন, ‘আমি আট বছর সেতু বিভাগের সচিব ছিলাম। ফলে আমি এখনো এই কাজের দেখাশোনা করে থাকি।’

এর আগে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সপ্তাহখানেক আগে জানিয়েছিলেন, এক বছরের মধ্যেই সেতুটি চালু করা যাবে।

২০১৪ সালের ডিসেম্বরে পদ্মা সেতুর নির্মাণকাজ শুরু হয়। ৪২টি পিলারে ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্যর ৪১টি স্প্যান বসিয়ে ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ পদ্মা সেতু নির্মাণ করা হবে। মূল সেতু নির্মাণের জন্য কাজ করছে চীনের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি (এমবিইসি)। আর নদীশাসনের কাজ করছে দেশটির আরেকটি প্রতিষ্ঠান সিনো হাইড্রো করপোরেশন।

২০১৭ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর সেতুর প্রথম স্প্যান বসানো হয়। এরপর একে একে নানা বাধা পেরিয়ে ও নানামুখী চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে সেতুর সবগুলো স্প্যান বসানোর কাজ শেষ হয়।

এখনো সেতুর আরও কিছু কাজ বাকি আছে। যেমন- রোডওয়ে স্ল্যাব, রেলওয়ে স্ল্যাব, সুপার-টি গার্ডার বসানো। স্ল্যাবের উপর পিচ ঢালাইয়ের কাজ, আলোকসজ্জা, ল্যাম্পপোস্ট বসানোর কাজ করতে হবে। সব মিলিয়ে যান চলাচলের জন্য সেতু উন্মুক্ত করতে আরও এক বছর লাগতে পারে।