অবৈধ সম্পদ অর্জন, পাপুলের পর এবার ফাঁসছেন একাধিক এমপি

সাংসদ পাপুল দম্পতির নামে মিলেছে বিপুল অবৈধ সম্পদ। তাই এমপি শহিদ ইসলাম পাপুল ও তার স্ত্রী সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য সেলিনা ইসলামসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুদক। সংস্থাটির কমিশনার ড. মোজাম্মেল হক খান জানান, আরও কয়েকজন সংসদ সদস্যের বিরুদ্ধে অনুসন্ধান চলছে।

কুয়েতে গ্রেপ্তারের কয়েকদিন আগে এমন সাফাই গেয়েছিলেন নিজের পক্ষে। তবে গ্রেপ্তারের পর বেরিয়ে আসতে থাকে একেরপর এক থলের বিড়াল।

তার সম্পদের অনুসন্ধান শুরু করে দুদক। যদিও হাজিরা দিয়ে স্ত্রী সেলিনা ইসলাম দাবি করেছিলেন তারা ষড়যন্ত্রের শিকার।

কয়েকমাসের অনুসন্ধান থেকে বেরিয়ে আসে পাপুলের ২৩ বছর বয়সী শ্যালিকা জেসমিন প্রধানের ৫টি ব্যাংক অ্যাকাউন্টে গেল ৮ বছরে এসেছে ১৪৮ কোটি টাকা, যার কোন উৎস পাওয়া যায়নি। এছাড়া পাওয়া গেছে ২ কোটি ৩১ লাখ টাকার অবৈধ সম্পদ।

দুদক কমিশনার জানান, অনুসন্ধানের তালিকায় একাধিক সংসদ সদস্য রয়েছেন। যাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে শিগগিরই। অন্য এমপিরা হলেন, মোয়াজ্জেম হোসেন রতন, নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন, সামশুল হক চৌধুরী, নজরুল ইসলাম বাবু, পঙ্কজ দেব নাথ, মাহি বি চৌধুরী, আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব ও হাজী মো. সেলিম।

এদিকে সংসদ সদস্য হাজী সেলিমের, ১৩ বছর দণ্ডের মামলার বিচারিক আদালতে থাকা, বিভিন্ন নথি তলব করেছেন হাইকোর্ট। ৭ ডিসেম্বরের মধ্যে ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৭ কে, এই নথি পাঠাতে বলা হয়েছে।

সম্প্রতি হাজী সেলিমের মামলাটি দ্রুত শুনানির জন্য, হাইকোর্টে উপস্থাপন করা হয়। ২০০৭ সালে হাজী সেলিমের বিরুদ্ধে লালবাগ থানায় অবৈধভাবে সম্পদ অর্জনের মামলা করে দুদক। এ মামলায় ২০০৮ সালের ১৩ বছরের কারাদণ্ড দেন আদালত।