অবশেষে বরিশালের সেই ইয়াসমিনের মামলা নিলো পুলিশ

বিশেষ রিপোর্টঃ লালমনিরহাটের হারাটি ইউনিয়নের বখাটে কমল চন্দ্র দাসের বিরুদ্ধে মামলা নিয়েছে সদর থানা পুলিশ। মামলা নং ৭, ৫/৪/২০২০ এর ৭/৯(১) ২০০০ সালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন সংশোধনী ২০০৩; অপহরণ ও ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোর পুর্বক ধর্ষণ করার অপরাধ।
মামলার বিবরণ এবং মেয়েটির সাথে কথা বলে জানা যায়,দুই বছর পুর্বে মুসলিম পরিচয় দিয়ে প্রথমে প্রেম,এরপর বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে বরিশাল সদরের ইয়াসমিন আক্তার (২৫)কে সুকৌশলে অপহরণ করে চট্টগ্রামের অজ্ঞাত এক বাড়িতে নিয়ে ১০/১২ দিন রেখে একাধিকবার ধর্ষণ করেছিলো লালমনিরহাটের হারাটি ইউনিয়নের তালুক চোংগাদারা (মাঝিটারী) গ্রামের নারায়ন চন্দ্র দাসের বখাটে ছেলে কমল চন্দ্র দাস। এরপর সেখান থেকে পালিয়ে আসে লালমনিরহাটের নিজ বাড়িতে।
এখানেই ক্ষান্ত হয়নি সে। মোবাইল ফোনে বিয়ে করার চাপ দিলে মেয়েটিকে বিয়ে করবে বলে লালমনিরহাটে ডেকে আনে কমল চন্দ্র। এরপর রাত গভীর হলে চুপিসারে তার বাড়িতে ঢুকিয়ে সারারাত পালাক্রমে ধর্ষণ করে। সকালে পরিবার ও আশেপাশের লোকজনের মধ্যে ঘটনাটি জানাজানি হলে পালিয়ে যায় কমল।
মেয়েটির গর্ভে কমলের ঔরশজাত সন্তান বলে জানিয়েছেন ইয়াসমিন আক্তার।

ঘটনার পর থেকে ১৪ দিন এলাকায় অবস্থান করলেও আর দেখা মেলেনি কমল চন্দ্রর। এরমাঝে ঘটেছে হুমকি,জোরপূর্বক স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নেয়ার ঘটনা।
এরপর সচেতন এলাকাবাসী ঘটনাটি লালমনিরহাট নিউজ২৪ এর সম্পাদক কে জানালে তিনি পুলিশের সহযোগিতায় মেয়েটিকে উদ্ধার করেন।

ভিডিও দেখুন https://m.facebook.com/story.php?story_fbid=2674492572832434&id=1729371560677878

প্রিয় পাঠক,বরিশালের ইয়াসমিন কে নিয়ে গত ১৪ দিনে ঘটে গেছে নানা নাটকীয়তা। এর অনেক তথ্যপ্রমাণ,অডিও ক্লিপ আমাদের হাতে এসেছে। যাচাই করে ঘটনার ভেতরের খবর নিয়ে খুব শিগগিরই আমরা আসছি দ্বিতীয় পর্ব নিয়ে। লালমনিরহাট নিউজ ২৪ এর সাথেই থাকুন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে